1. admin@gaibandhapratidin.com : Milon Sarkar : Milon Sarkar
জ্যেতি--লেখক কবিঃ মোঃআব্দুল্লাহ্ আল মামুন • গাইবান্ধা প্রতিদিন
শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৬:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
পৃথিবী সেরা তিন সাংবাদিক, যারা সাংবাদিকতা পেশাকে নিয়ে গেছে অন্যরকম এক উচ্চতায়। গোবিন্দগঞ্জে ফেয়ার প্রাইজের চাল কালোবাজারে বিক্রির সময় চালসহ আটক ১ পলাশবাড়ীতে ২৫০ গ্রাম গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ির সহযোগী মজনু গ্রেফতার : মূল ব্যবসায়ি পলাতক গাইবান্ধা সদর হাসপাতাল ডাঃ তাহেরা আক্তার মনির ভুল চিকিৎসায় মারা গেলেন মা | গোবিন্দগঞ্জে এক মর্মান্তিক সড়ক দুঘর্টনায় একই পরিবারের ৪ অটোভ্যান যাত্রী নিহত গোবিন্দগঞ্জে বাস চাপায় এক সাইকেল আরোহী নিহত :বাস আটক নিরাপদ যানবাহন চাই এর সাথে বাংলাদেশ অনলাইন বঙ্গবন্ধু পরিষদলীগের সৌজন্যে সাক্ষাৎ। একজন ইউপি মেম্বারের উন্নয়নের কথা- ১২ কামারজানি ইউনিয়ন পরিষদ জিয়াউর রহমান জিয়া কেন্দ্রীয় কমিটির সহ – স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক হওয়ায় সদর উপজেলার সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত ৩৫ বছরেও জোটেনি হুইল চেয়ার শারীরিক প্রতিবন্ধী জাহাঙ্গীর আলমের কপালে

জ্যেতি–লেখক কবিঃ মোঃআব্দুল্লাহ্ আল মামুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৭ মার্চ, ২০২১
  • ৯৬ বার পঠিত

জ্যেতি লেখক কবিঃ মোঃআব্দুল্লাহ্ আল মামুন তুই সুখী হ কষ্টের অনুভূতির অনিঃশেষ শুভকামনা। খুনসুটি আর ঝগড়ায় আলোকিত করে রাখা জ্যেতি, সোনালি কারুকার্যে খচিত ওড়নার পেছনে হাস্যোজ্জ্বল কনে। মা নিশ্চয় অনুভব করছে ঐ বাড়ীতে ভালো থাকবে তো।, আনন্দঘন মুহূর্ত সাথে, বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান। শুক্রবার বিয়ে, ৪ঠা মার্চ ছিল হলুদের অনুষ্ঠান। অথচ অমব্যাসার রাতের মতো অন্ধকার। মাথায় নুইয়ে পড়া গাদা ফুল, নাকে আগরবাতির গন্ধ, থেকে থেকে কান্নার রোল।

উৎসবের আলো ঝলকানো বাতির নিচে শুয়ে থাকা দেহটাকে বিদায় জানানোর অপেক্ষা, প্রস্ফুটিতো আলোয় ভেঙ্গে গেলো ভোর ফুলে ফুলে সেজেছে সূবর্ণা, পুজা, প্রীতি। আমিও ছিলাম, শূন্য ঘরের জল ছবির দিকে তাকিয়ে দরজায় ধুপ ধুপ শব্দে, জ্যেতির ডাক ভাইয়া ওঠ। বটতলা থেকে হাটখোঁলা, নাটোর থেকে লাবন্য, সবাই এসেছে বিদায় জানতে। তখন কেউ কবি, কেউ পিতা মায়া, সম্পর্ক ধরে রাখেনি তোকে। পয়েসঘোষ থেকে আসে বর কারো সাফল্যের আরাধনা, কেউ বা নিমজ্জিত নতুন সংসার।

বড় ছেলে হওয়ার দায়িত্ব, মধ্যবিত্তের হাতের টান পোড়ন, সামাজিক দায়িত্ব কিছুই ছাড়েনি আমাকে। সাথে তোকে হারানোর বুক ছেড়া ঢেউ, আমাদের মাটি মাখা ঘরে, অন্ধকারে শুন্য কাঠামো ছাড়া আর কিছুই রইলোনা। নিয়ে গেল, খুনশুটি, রাগ অভিমান, মধুর আবেগ। আমিও বাবা হব ? এই একই ট্রেনের যাত্রি হবো- আমিও ছুটে যাবো, স্কুল, মেলা, অনুষ্ঠান। একদিন আমিও এই বাড়ীতেই হামাগুড়ি দিয়েছিলাম তখন ছিলো না কোন বাড়ী, চারদিক শুধু ধুধু খোলা মাঠ। আর পাশের বটতলায় বসতো হাট।

কেরোসিনের কুপ, এক কলমের দাগায়, বাড়ী ভিটে থেকে সরিষের ক্ষেত, সবই মনে আছে। আমি মরে যাচ্ছি যন্ত্রনাতে, তুইহীন প্রতিটি সকাল। তোর আবদার, বকুনী সবই আসছে ঝাপসা হয়ে। সংসার, ব্যস্ততা কোন কিছুতেই মন নেই, জ্যেতি এটাই জীবন। তোর জানা দরকার – আসলে তুই আছিস বাড়ীর পুষ্পবনে, মায়ের পাশে বাড়ীর উঠনে বাবার ভেজা গামছায়, সমস্ত বাড়ী জুড়ে। বাবা, মা আমাদের সকালের হ্রদয়ে তুই আছিস, তুই ছিলি তুই থাকবি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | গাইবান্ধা প্রতিদিন

Theme Customized BY LatestNews