1. shahriarltd@gmail.com : GaibandhaPratidin :
  2. maydul@gaibandhapratidin.com : Maydul :
  3. info@gaibandhapratidin.com : Milon Sarkar : Milon Sarkar
  4. raju@gaibandhapratidin.com : Raju Sarker : Raju Sarker
  5. srridoy121@gmail.com : Samsur Rahman Ridoy : Samsur Rahman Ridoy
মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১০:১১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ফুলবাড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন জাতীয় পাটির কেন্দ্রীয় সদস্য আব্দুর রাজ্জাক মন্ডল চলে গেলেন শিক্ষানুরাগী আমির আলী তালুকদার সুন্দরগঞ্জে ১৩০ মন্ডপে শামীম হায়দার পাটোয়ারী এম,পি’র আর্থিক সহায়তা প্রদান ফুলছড়ি বালাসী রোডে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ৪ গোবিন্দগঞ্জে মাননীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে বিভিন্ন পূজা মন্ডপে অর্থিক অনুদান প্রদান বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে দুর্গাপূজা পরিদর্শন সামাজিক অবক্ষয় রোধে গুণীজন, কঠোর আইন ও সচেতনতায় বন্ধ হবে ধর্ষণ গোবিন্দগঞ্জে মেয়র আতাউর রহমান সরকার এর বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শণ ও আর্থিক অনুদান প্রদান প্রবীন আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক মৃত্যুতে এর নিরাপদ যানবাহন চাই এর চেয়ারম্যান এর শোক প্রকাশ। আগামী ১৩নং শ্রীপুর ইউনিয়ন পরিষদে নৌকার মাঝি হতে চান এ.কে.এম কামরুল হুদা (রাজু)

চিলাহাটি দিয়ে ফের ভারতের সাথে রেল যোগাযোগ শুরু হবে : রেলমন্ত্রী।

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩০ আগস্ট, ২০২০
  • ৭১

রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, বাংলাদেশের চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ি হয়ে ভারত বাংলাদেশ রেল যোগাযোগ আগামী ২৬ মার্চ শুরু হবে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সেদিন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী ওই রেলপথ যোগাযোগের উদ্বোধন করবেন।

আজ শুক্রবার বিকেলে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটিতে ভারত-বাংলাদেশ সংযোগ রেল পথের নির্মাণ কাজের পরিদর্শনকালে তিনি একথা বলেন।
তিনি বলেন, করোনা মহামারী অতিক্রম করতে পারলে দুই প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে সেটি উদ্বোধন হবে। আর যদি সম্পূর্ণ নিরাপদ না হয়, তাহলে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা আশা করছি আগামী ডিসেম্বরের আগেই আমাদের অংশের রেল লাইন নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে উদ্বোধনের জন্য আমরা প্রস্তুত থাকব। ভারতের অংশে যেটুকু বাকি আছে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে ডিসেম্বরের মধ্যে সম্পন্ন করার অনুরোধ জানানো হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, অবিভক্ত ভারতের রেল যোগাযোগের এটিই প্রধান পথ ছিল। পাকিস্তান ভারত ভাগ হওয়ার পরেও ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত সেটি চালু ছিল। কলকাতা থেকে এ পথে ট্রেন চলাচল করতো। সেই রেল যোগাযোগটি ১৯৬৫ সালের পাক-ভারত যুদ্ধের সময় বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে যে সোনালি অধ্যায়ের সূচনা করেছে তারই ফলশ্রুতিতে এই রেলপথ পূণরায় চালুর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। গত জুন মাসে এ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু কভিড-১৯ মহামারীর কারণে আমরা মহা দুর্যোগের মধ্যে আছি। সে কারণে আমাদের অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত হয়েছে। তার পরেও স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতায় এ প্রকল্পটি অনেকটা চলমান আছে। অন্যান্য প্রকল্পের মতো এ প্রকল্পেরও এক বছর মেয়াদ বাড়ানো হলেও প্রকল্পটির বাস্তবায়নকারী প্রতিষ্ঠান এবং প্রকল্প পরিচালকের আন্তরিকতায় কাজটি শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আমাদের মাত্র দেড় কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ কাজ বাকি আছে, সেটি আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে শেষ হবে।
পরিদর্শনের সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, রেলপথ সচিব মো. সেলিম রেজা, রেলের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের মহা ব্যবস্থাপক মিহির কান্তি গুহ, জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান, চিলাহাটি রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. আব্দুর রহিম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক (কল্যাণ ও পুনর্বাসন) সরকার ফারহানা আকতার সুমি, ডোমার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স ইনফ্রাসট্রাকচার লিমিটেডের প্রকল্প পরিচালক মো. রোকনুজ্জামান সিহাব প্রমুখ।

উল্লেখ্য, গত বছরের ২১ সেপ্টেম্বর চিলাহাটি রেল স্টেশন চত্বরে প্রকল্পটির উদ্বোধন করেন রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, চিলাহাটি রেলস্টেশন থেকে সীমান্ত পর্যন্ত ৬ দশমিক ৭২৪ কিলোমিটার ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণে সরকারের ব্যয় হচ্ছে ৮০ কোটি ১৬ লাখ ৯৪ হাজার টাকা।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ভারতের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশ রেলওয়ে চিলাহাটি থেকে সীমান্ত পর্যন্ত ৬ দশমিক ৭২৪ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হচ্ছে। ২ দশমিক ৩৬ কিলোমিটার লুপ লাইনসহ ৯ দশমিক ৩৬ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হচ্ছে বাংলাদেশ অংশে। অপরদিকে ভারতের হলদিবাড়ি রেল স্টেশন থেকে সীমান্ত পর্যন্ত ৬ দশমিক ৫ কিলোমিটার রেলপথ স্থাপনের কাজ ইতিমধ্যে শেষ করেছে ভারতীয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ অংশে ম্যাক্স ইনফ্রাসট্রাকচার লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজটি করছে।

 

এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | গাইবান্ধা প্রতিদিন

Theme Customized BY LatestNews