1. shahriarltd@gmail.com : GaibandhaPratidin :
  2. maydul@gaibandhapratidin.com : Maydul :
  3. info@gaibandhapratidin.com : Milon Sarkar : Milon Sarkar
  4. raju@gaibandhapratidin.com : Raju Sarker : Raju Sarker
  5. srridoy121@gmail.com : Samsur Rahman Ridoy : Samsur Rahman Ridoy
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ফুলছড়িতে সাংবাদিকদের সাথে ওসির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত গাইবান্ধায় বিএনপির নেতা খন্দকার আহাদ আহমেদের উদ্যোগে শারদীয় দূর্গোৎসব উপলক্ষে দরিদ্র সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে শাড়ি বিতন সুন্দরগঞ্জে ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী সেচ্ছাসেবক লীগের আনন্দ মিছিল গোবিন্দগঞ্জে বিদ্যুৎ বিভাগের বিরুদ্ধে মানববন্ধণ ও স্মারক লিপি প্রদান গাইবান্ধায় চাচার ধর্ষণের শিকার ষষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী! গাইবান্ধায় স্বতন্ত্র মাদ্রাসা জাতীয়কররণের দাবীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় রাজাহার ইউনিয়নে ইউপি সদস্য পদে এভিএমএ অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে জলি বেগম নির্বাচিত পথশিশুদের মাঝে শাহনূরের খাদ্যসামগ্রী বিতরণ অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমে উদ্ধুদ্ধ করনের লক্ষ্য কঞ্চিপাড়া ডিগ্রি কলেজে কর্মশালা অনুষ্ঠিত। সুন্দরগঞ্জের শ্রীপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কামরুল হুদা রাজু

কোরবানি কর্মসূচির মাংস পেল গাইবান্ধার ২১০০ হতদরিদ্র পরিবার

রওশন আলম পাপুল, বিশেষ প্রতিবেদক
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২ আগস্ট, ২০২০
  • ১০০

করোনা ভাইরাসরোধের সরকারি সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তর্জাতিক দাতা  ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশের অর্থায়নে এসকেএস ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে কোরবানি কর্মসূচিতে গাইবান্ধার দুই উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের করোনা ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার ১০০ পরিবারের মধ্যে কোরবানির মাংস বিতরণ করা হয়েছে।

রবিবার (২ আগষ্ট) সকালে কোরবানি কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সাঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন সুইট। এসময় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিনগর ইউপি সদস্য মো. সামসুজ্জোহা সরকার। সাঘাটা উপজেলার মুক্তিনগর ইউনিয়নের হাট ভরতখালী নূতনকুঁড়ি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় চত্ত¡রে সাঘাটা উপজেলার সাঘাটা ইউনিয়ন, মুক্তিনগর, ভরতখালী, কামালেরপাড়া ও ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের হতদরিদ্র, অসহায়, প্রতিবন্ধী, স্বামী পরিত্যক্তা ও বিধবা পরিবারের মধ্যে দুই কেজি করে মাংস বিতরণ করা হয়।

কোরবানির মাংস পেয়ে মুক্তিনগর ইউনিয়নের পুটিমারী খাঁ পাড়া গ্রামের খলিল খান (৬০) নিজের ভাষায় বললেন, “হামার কোনো সম্পদ-ট্যাকা পোস্যা নাইও বাবা। কোরবানী দেমো কুনটি থাকি। গতবার কোরবানির ঈদের পর দু-অ্যাকবার খাচি। গ্রামের মানষের কোরবানির অলপো অ্যানা গোশত পাচিনু। সেট্যা বউ-ছোল নিয়্যা খাচি। এসকেএসোত থাকি এখন যে দুই কেজি গোশত পানু, সেটা বেটি-জামাইয়োক খাওয়ামো”।

কোরবানির মাংস পেয়ে ভরতখালী ইউনিয়নের ভরতখালী গ্রামের তহমিনা বেগম (৫০) বললেন, “করোনার জন্নে সোয়ামীর কামাই-ওজগার তেমন নাই, এবারক্যার ঈদোত গরুর গোশত ও মুরগি কিনব্যার পাই ন্যাই। এবারক্যা গ্রামোত একট্যা গরু ও একটা খাসি কোরবানি হচে। সেই গোশত একবেলা খাচি। এসকেএসের দেওয়া গোশত পায়য়্যা খুবি উপোকার হলো গো বাবা”। একই রকম অনুভূতি জানালেন কোরবানি কর্মসূচির মাংস নিতে আসা আরও অনেকে।

ইসলামিক রিলিফের হিউম্যানিটারিয়ান ও রেজিলিয়েন্স প্রোগ্রামের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মঈন উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, ইসলামিক রিলিফের অর্থায়নে বিশ্বব্যাপী ৩০টি দেশে এই কোরবানী কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের ২৮টি জেলায় ১০ হাজার ২০০ কোরবানী করা হয়েছে। এর মধ্যে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পও যুক্ত আছে। আগের বছরগুলোর মতোই এ বছরও গাইবান্ধায় এসকেএসের মাধ্যমে কোরবানি কর্মসূচি বাস্তবায়িত হয়েছে। এবার ৪২০টি কোরবানি করা হয়েছে।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ইসলামিক রিলিফ এর হিউম্যানিটারিয়ান ও রেজিলিয়েন্স প্রোগ্রামের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মঈন উদ্দিন আহম্মেদ, এসকেএস ফাউন্ডেশনের সহকারি পরিচালক খন্দকার জাহিদ সরওয়ার, সোশ্যাল এন্টারপ্রাইজের সমন্বয়কারী আবু সাঈদ সুমন, সমন্বয়কারী মো. জাহিদুল ইসলাম, মো. আবুল কালাম আজাদ, মো. আবু সোহেল, মো. আশরাফুল আলম, মো. ইউনুস আলী, মো. আব্দুস সামাদ, মো. বাহারাম খান, মো. উজ্জ্বল মিয়া, মো. মশিউর রহমান প্রধানসহ অন্যান্যরা।

উল্লেখ্য, দারিদ্র ও দুর্ভোগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে আন্তর্জাতিক দাতা  ইসলামিক রিলিফ ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এর সদর দপ্তর যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামে অব¯ি’ত। ইসলামিক রিলিফের কার্যক্রম ছড়িয়েছে বিশ্বের ৪৫টি দেশে।

 

এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | গাইবান্ধা প্রতিদিন

Theme Customized BY LatestNews