1. admin@banglaitsolution.xyz : Mr. Shahriar Hossain : Mr. Shahriar Hossain
  2. desk@gaibandhapratidin.com : Maydul Islam : Maydul Islam
  3. : :
  4. newsdesk@gaibandhapratidin.com : Office Staff : Office Staff
ফুলছড়িতে বন্যার পানি বৃদ্ধি,দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট,নেই পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা - Gaibandha Pratidin
বুধবার, ০৮ জুলাই ২০২০, ০৯:২৮ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞাপন:

ফুলছড়িতে বন্যার পানি বৃদ্ধি,দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট,নেই পয়ঃনিস্কাশন ব্যবস্থা

মোঃ হাবিবুর রহমান উপজেলা প্রতিনিধি ফুলছড়ি
  • প্রকাশের সময়: সোমবার, ২৯ জুন, ২০২০
  • ১০৫ বার পঠিত
গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ।
গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ফুলছড়ির ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে এ উপজেলার এরেন্ডাবাড়ি, ফুলছড়ি, ফজলুপুর, গজারিয়া, উড়িয়া ও কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের ৪০টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। সেইসাথে পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে শত শত হেক্টর ফসলি জমি।
পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় অনেকে ঘরবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নেওয়া শুরু করেছেন। কেউ কেউ আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে যাচ্ছেন, কেউ বাঁধে আশ্রয় নিচ্ছেন আবার কেউ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিচ্ছেন। এসব এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট ও পয়ঃনিষ্কাশন সমস্যা।
এদিকে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চরাঞ্চলের মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে ডাকাত আতঙ্ক।
ফজলুপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন জালাল বলেন, পানি বৃদ্ধির ফলে আমরা চরাঞ্চলের মানুষেরা প্রতিনিয়ত ডাকাতের আতঙ্কে ভুগছি। তিনি পুলিশের নৌ- টহল জোরদারের দাবী জানান।
ফুলছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাওছার আলী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে নদীতে নৌ-টহল জোরদার করেছি। নৌ-ডাকাতি প্রতিরোধে রাতে দিনে পালাক্রমে পুলিশ টহল দিচ্ছে।
ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু রায়হান দোলন বলেন, আমি ইতোমধ্যে বাঁধে আশ্রয় নেওয়া পরিবারগুলোর সাথে দেখা করেছি এবং সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখছি। বন্যা কবলিতদের সহযোগিতা করার জন্য উপজেলা প্রশাসন সবসময় প্রস্তুত আছে। এছাড়া বিশুদ্ধ পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।
জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এ কে এম ইদ্রিস আলী বলেন, এ পর্যন্ত ৬০ মেট্রিক টন চাল এবং নগদ ৫ লক্ষ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে এরমধ্যে ফুলছড়ি, সাঘাটা, সুন্দরগঞ্জ ও গাইবান্ধা সদরসহ প্রত্যেক উপজেলায় ২৫ মেট্রিক টন করে চাল এবং ১ লক্ষ ৭৫ হাজার করে টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আমাদের পর্যাপ্ত পরিমাণে ত্রাণসামগ্রী মজুদ আছে এবং বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের যথেষ্ট প্রস্তুতি রয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্র জানিয়েছে, গত ২৪ ঘন্টায় ১২ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে সোমবার (২৯ জুন) বিকেল ৩ টা পর্যন্ত ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ৮০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
এ জাতীয় আরো খবর...

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | গাইবান্ধাপ্রতিদিন.কম

Theme Customized BY LatestNews